নওগাঁর ঐতিহাসিক দিবর দিঘি এখন পর্যটন কেন্দ্র। ছবি-অন্তর আহম্মেদ

সুপ্রভাত বগুড়া(অন্তর আহম্মেদ নওগাঁ): স্যার আলক জ্যান্ডার কানিংহাম ও স্যার বুকানন হ্যামিলটনর পরিদর্শন করা নওগাঁ জলার পতীতলা উপজলার ঐতিহাসিক দিবর দীঘি সঠিক উদ্যাগ নিল দশর অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হত পারে।

ঐতিহাসিক দিবর দীঘি স্থাপিত প্রচীন স্থাপত্য পুরা কির্তীর অনুপম নিদর্শন এবং হাজার বছরর বাংলা ও বাঙ্গালীর শর্য-বীর্জর প্রতীক হিসাব কালর ভ্রুকুটি উপক্ষা কর আজা দন্ডায়মান দীঘির বিজয় স্তম্ভটি আর সটি দখার জন্য দশর বিভিন ¯ান থক প্রতিদিন শত শত দর্শনার্থী দিবর দীঘিত ভীড় জমাছ।

ইতিহাস সমদ্ধ দিবর দীঘি বরদ্র ভূমি নওগাঁ জলার পতীতলা উপজলার দিবর ইউনিয়নর দিবর বা ধীবর নামক গ্রাম অবস্থিত। দীঘিটিক ঘির লাক মুখ অনক কল্পকাহিনী বা কাল্পনিক গল্প-কথা প্রচলিত আছ। এলাকার প্রবীন ব্যক্তিদর মত জনক বিষু কর্মা নামক এক বির কর্তক এক রাত এবং অন্যান্যদর মত জীনর বাদশাহর হুকুম এক রাত বিশাল আকতির এই দীঘিটিক খনন করা হয়।

ইতিহাস থক জানা যায় দিবর বা ধীবর নাম পরিচিত এই বহত জলাশয় ও জলাশয়র মাঝখান অবস্থিত স্তম্ভটি একাদশ শতাব্দীর কবত্য রাজা দিব্যক তার ভ্রাতা রুদ্যোকর পুত্র প্রখ্যাত নপতি ভীমর কির্তী হিসব পরিচিত।

ইতিহাস থক আরাও জানা যায়, পাল রাজা দ্বীতিয় মহিপালের (১০৭০ খ্রীঃ-১০৭১ খ্রীঃ) অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে বরেন্দ্র ভূমির অধিকাংশ অমত্য পদচ্যুত সেনাপতি বরেন্দ্র ভূমির ধীবর বংশদ্ভুত কৃতি সন্তান দিব্যকের নেতৃত্বে পাল শাসকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করেন এবং পরবর্তীতে দ্বিতীয় মহিপালকে হত্যা করেন।

পরে সর্বসম্মতিক্রম দিব্যকক বরদ্রভূমির অধীপতি নির্বাচন করা হয়। অল্প কাল পর দিব্যক মত্যু বরণ করল প্রথম রুদ্যাক পুত্র ভীম সিংহাসন আহরাণ করন। তিনিই এক মাত্র কবত্য বংশীয় রাজা যিনি প্রায় ২৫/৩০বছর বরদ্র ভূমি শাসন করন। এর পর দ্বিতীয় মহিপালর ভ্রাতা রামপাল ভীমক পরাজিত ও নিহত কর রাজ্যা পুনঃউদ্ধার করন।

তব কান কতি কবত্য রাজা বিজয় স্তম্ভটি নির্মান করছিলন তা আজ অবধি সঠিকভাব জানা যায়নি। প্রায় ৩০ফুট লম্বা একটি অখন্ড পাথর কট তরী এই ¯ম্ভর ৯টি কাণ আছ। এর এক কাণ থক অপর কাণর দুরত্ব ১২ইঞ্চি। এই বিজয় স্তম্ভর উপরিভাগ পর পর তিনটি বলয়াকার স্মীত রখা আছ যা স্তম্ভর সদর্য বদ্ধি করছ। এর শীর্ষদশ নাদনিক কারুকার্য খচিত মুকুটাকার নির্মিত।

বর্ণনা মত পানির উপরিভাগ স্তম্ভর উচতা ১০ফুট, পানির ভিতর ১০ফুট এবং মাটির নিচ সম্ভবত আরা ১০ফুট গথিত আছ। স্যার বুকানন হ্যামিলটনর মত ¯ম্ভর দর্ঘ ৩০.৩৪ফুট। অপর দিক স্যার আলক জ্যান্ডার কানিংহামর মত দর্ঘ ৩০ফুট। স্যার আলকজান্ডার কানিংহাম ১৮৭৯সাল যখন এই দীঘি পরিদর্শন আসন তখন এর গভিরতা ছিল ১২ফুট এবং এর প্রত্যক বাহুর দর্ঘ ছিল ১২শ ফুট।

বিজয় স্তম্ভটির শীর্ষদশ মূল্যবান ব¯ আছ ভব কয়ক যুগ পূর্ব এর শীর্ষদশর ক্ষতি সাধন করা হয়ছ। কথিত আছ তারা প্রত্যক দিঘীত ডুব মারা গছন। যুগ যুগ ধর দখলবাজদর কারন দিবর দিঘীর অনক সরকারী সম্পত্তি বদখল হয়ছ। বর্তমান দিবর দীঘির জলাশয়র পরিমান প্রায় ২০একর।

এ জলাশয় টুকুই সরকারী সম্পত্তি হিসব বজায় আছ। মাছ চাষর জন্য লিজ দিয় সরকার প্রতি বছর দীঘি থক প্রয়ি ১০ লক্ষ টাকা রাজস্ব আয় করছ। ঈদর দিন ও তার পরবর্তী ৭দিন সখান দশর বিভিন ¯ান থক লক্ষ লক্ষ লাকর সমাগম ঘট।

তব এখান সং¯ারর কান কাজ চাখ পরার মতা না। ছাটদর জন্য দালনা, বাঘ ভালুকর মুর্তি ভাসকার্য মিনি চিড়িয়াখানা ইত্যাদি সংযুক্ত করল বাচা যমন আনদ পাব তমন দিবর দীঘির সুদরয্ আরও বদ্ধি পাব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here