সুপ্রভাত বগুড়া (এস এম দৌলত): বগুড়ার শিবগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযান সরকারি খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ৪২ বস্তা চাল উদ্ধার, থানায় মামলা। থানার মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২২ মে রাতে শিবগঞ্জ থানাধীন শিবগঞ্জ সদর ইউনিয়নের জুরি মাঝপাড়া গ্রামের জনৈক মোঃ রাঙ্গার বাড়ীর পাশে সরকারি খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা মূল্যের চাউল কালো বাজারের মধ্যেমে ক্রয় করে মজুদ করা কালোবাজারিরা বিক্রি করার জন্য চাউল গুলি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে একটি ভটভটিতে লোড করছে।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে থানার ইন্সপেক্টর ( অপারেশন) হরিদাস মন্ডলের সহ থানার এআই আবুল কালাম আজাদ, এএসআই আফজাল হোসেন সহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ভটভটির চাউলের বস্তার উপরে বসা দুই জন ব্যক্তি সহ ভটভটি চালক ভটভটি থামিয়ে দ্রæত পালানোর চেষ্টা করে।

এসময় পুলিশ শিবগঞ্জ থানার জুরি মাঝপাড়া গ্রামের মৃত তোজাম্মেল হক এর ছেলে শিবলু (৩৫) কে আটক করে। এসময় মাঝপাড়া (দেবোত্তরপাড়া) গ্রামের মৃত জালাল উদ্দিন মন্ডল পুত্র মোঃ জাহাঙ্গীর মন্ডল (৩৬) পালিয়ে যায়।

পুলিশ জানায়, ভটভটিতে থাকা সরকারি খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা মূল্যের প্লাষ্টিকের বস্তায় ৪২ বস্তা চাউল, ২২ মে রাতে বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাচ্ছে। তারা ১০ টাকা মূল্যের সরকারি খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর চাউলের কার্ডধারী প্রতিটি গ্রহীতার নিকট হতে ৩০ কেজি করে চাউল স্বল্প মূল্যে ক্রয় করে মজুদ করে রেখে।

মজুদকৃত চাউলগুলি কালোবাজারির মাধ্যমে বেশী দামে বিক্রি করার উদ্দেশ্যে শিবলু ও জাহাঙ্গীর ভটভটি চালকের মাধ্যমে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য ভাটভটিতে লোড করছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে জানান , খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা মূল্যের চাউলের গ্রহীতাদের তালিকা চেয়ারম্যান, মেম্ববার সহ জন প্রতিনিধিগন প্রস্তুত করেন। তাদের প্রস্তুতকৃত তালিকা নিয়োজিত ডিলারদের কাছে সরবরাহ করলে ডিলারগন সেই তালিকা মূলেই চাউলগুলি কার্ডধারীদের নিকট ১০ টাকা মূল্যে বিক্রয় করে থাকেন।

নির্বাচিত জন প্রতিনিধিরা যে সমস্ত ব্যক্তিদের তালিকা যথা নিয়মে ডিলারের নিকট প্রেরণ করেন, তাদের মধ্যে বেশীরভাগ গ্রহীতাই আর্থিক ভাবে স্বচ্ছল থাকায় ঐ সকল গ্রহীতারা তাদের ক্রয়কৃত ১০ টাকা মূল্যের চাউল নিজেরা না খেয়ে বেশী মূলে বিক্রয় করে থাকেন।

সরকার যে উদ্দেশ্যে এ কর্মসূচী গ্রহন করেছেন তা সম্পূর্ন রূপে ব্যহত হচ্ছে। ফলে দুস্থ, অসহায় এবং গরীব মানুষগন উক্ত খাদ্য বান্ধব প্রকল্পের কর্মসূচীর আওতায় না আসার কারনে সাধারণ জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে।

যারা এই প্রকল্পের তালিকা প্রস্তুতের দায়িত্বে আছেন বা করেন তাদের পরিচিত একই সুবিধাভুগি ব্যক্তিদের নাম বার বার এইরূপ তালিকায় অন্তরভুক্ত করে তাদেরকে অবৈধ সুবিধা দিচ্ছেন।

তালিকা প্রস্তুতের ক্ষেত্রে সচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা না থাকলে সরকারের এই সুদূর প্রসারী প্রচেষ্টা কখন সফল হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে সচেতন মহল মনে করেন।

এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন, ১০ টাকা কেজি চাল ক্রয় করে কালো বাজারে বিক্রি করার জন্য মজুদ রাখায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ ঘটনা একজন কে আটক করা হয়েছে। পলাতক আসামীকে আটক করে আইনের আওতায় আনা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here