সুপ্রভাত বগুড়া (তানজিদ ইসলাম): করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মজিবুর রহমান তালুকদার (৫৬) প্রাণ হারালেন। তিনি স্পেশাল ব্রাঞ্চের সিটি এসবি পল্টন জোন-১ এ কর্মরত ছিলেন।

আজ সোমবার (১৮ মে) পুলিশ সদরদপ্তর থেকে তার মৃত্যুর এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।  করোনা ভাইরাস পজেটিভ হওয়ায় গত ১১ মে তাকে রাজধানীর ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। পরে অবস্থার আরো অবনতি হলে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। 

লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় তিনি আজ সোমবার (১৮ মে) সকাল ৮ টা ৫১ মিনিটে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে মারা যান।

তাঁর বাড়ি সিরাজগঞ্জের কাজিপুর থানায় হলেও নদীভাঙন কবলিত হওয়ায় স্থায়ীভাবে বগুড়া শহরের উপকণ্ঠে শাকপালা এলাকায় বসবাস করছিলেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের সিটি এসবিতে তাঁর পোস্টিং ছিল।

আজ ইফতারের কিছু পূর্বে তার মরদেহ বাংলাদেশ পুলিশের ফ্রিজিং ভ্যানে করে বগুড়ার শাকপালায় আনা হলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। ছেলে মেয়ের আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে উঠে।

ইফতারের পর পুলিশ সুপার জনাব মোঃ আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম বার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল জনাব সনাতন চক্রবর্তী ,ওসি শাজাহানপুর জনাব আজিম উদ্দীন, ওসি সদর জনাব এসএম বদিউজ্জামান সেখানে আসেন।

জেলা পুলিশের একটি চৌকস দল তাঁর প্রতি বিদায়ি সম্মান প্রদর্শন করে। সরকারি প্রটোকল অনুযায়ী নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে শাকপালা দীঘিরপাড় কবরস্থানে দাফন করা হয়। তার দাফন এবং জানাজার কাজে সাহায্য করেছেন কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন বগুড়ার একদল নিবেদিত স্বেচ্ছাসেবক।

এসআই মজিবুর পুলিশের নবম সদস্য যিনি সরকারি কর্তব্য পালনকালে কোভিড ১৯ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলেন। স্যালুট এই করোনা যোদ্ধাকে। মারা গেলেন তিনি এতিম হলো ছেলে মেয়ে । যারা পড়ছেন তাদের প্রতি অনুরোধ প্লিজ সবাই ঘরে থাকুন, আপনাদের অসচেতনতার কারণে ঝড়ে যেতে পারে অনেক তাজা প্রাণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here